sex-educationএসপিবি.এন নিউজ – লাইফস্টাইল ডেস্ক: শিশুর বেড়ে ওঠায় ‘সেক্স এডুকেশন’ প্রয়োজন? প্রয়োজন হলে ঠিক কতটা প্রয়োজন? প্রয়োজন না হলেও কেন প্রয়োজন নয়?

এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর সবার কাছে সমান নয়। প্রত্যেক অভিভাবকের কাছেই শিশুর ‘সেক্স এডুকেশন’ নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন মতামত রয়েছে। ‘সেক্স এডুকেশন’ নিয়ে পড়াশুনাতে বাংলাদেশের বেশিরভাগ বাবা-মায়েদেরই অনীহা রয়েছে।

বয়সের ব্যবধানের কারণেই হয়ত বাচ্চাদের বিভিন্ন প্রশ্নের সম্মুখীন হতে বড়রা ইতস্তত বোধ করেন। তবে উন্নত দেশগুলোতে ‘সেক্স এডুকেশন’কে গুরুত্বের সঙ্গে পর্যালোচনা করেন অভিভাবকরা।

বর্তমান সময়ে শিশুর সামাজিক করণের ক্ষেত্রে রেডিও, টেলিভিশন, মোবাইল, ইন্টারনেট যেমন রয়েছে তেমন ভাবেই ‘সেক্স এডুকেশন’ এর কি প্রয়োজন নেই?

সমাজবিজ্ঞানী ও গবেষকরা মনে করেছেন যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে ‘সেক্স এডুকেশন’ এর। কারণগুলো:

১) অভিভাবকরা যদি ‘সেক্স এডুকেশন’ নিয়ে শিশুর প্রশ্নের সঠিক উত্তর দেন, তাহলে বর্তমান সময়ে ‘সেক্স’ বিষয়ে নানান তথ্য উৎস থেকে প্রাপ্ত তথ্যের বিভ্রান্তি ও ভুল জানকারি থেকে শিশুরা রেহাই পেতে পারনে। এতে সার্বিকভাবে শিশুর বিকাশ ঘটবে।

২) যৌনতা নিয়ে অনেক ক্ষেত্রেই বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতিতে পড়ে শিশুরা। ‘সেক্স এডুকেশন’ এ সঠিক শিক্ষা পেলে শিশুরা এই রকম বিভ্রান্তি ও ভুল থেকে রেহাই পেতে পারে।

৩) শিশুর মনে ‘সেক্স এডুকেশন’ এর আড়ষ্ঠতা কাটাতে পারেন একমাত্র অভিভাবকরাই।

৪) অর্ধ সত্য তথ্য সবসময়ই ভয়ানক। ‘সেক্স এডুকেশন’ নিয়ে শিশু সঠিক ভাবে শিক্ষা পেলে তা শিশুর শারীরিক বিকাশের ক্ষেত্রেও সহায়ক।