falseভালো থাকার জন্য সম্পর্কে সৎ থাকাটা খুবই জরুরি। কারণ, একটা ছোট মিথ্যা সম্পর্ককে এক নিমেষেই ধ্বংস করে দিতে পারে। এই মিথ্যাগুলো অবশ্য খুব বেশি ক্ষতিকর নয়। তার পরও মিথ্যা তো মিথ্যাই। মেয়েরা অনেক সময়ই একটু অনুসন্ধিৎসু হয়, সব বিষয়ে জিজ্ঞাসা করে এবং ব্যাখ্যা জানতে চায়। এ কারণে অনেক সময়ই অনেক ছেলেকে মিথ্যা বলার প্রবণতা দেখা যায়। বোল্ডস্কাই ওয়েবসাইটের লাইফস্টাইল বিভাগে ছেলেদের মিথ্যা বলার আরো কিছু ‘কারণ’ দেওয়া হয়েছে।

মেয়েদের অযথা নাটক থেকে বাঁচতে

এটা করেছ কেন, এটা না করলে ভালো হতো, তুমি আমাকে না জানিয়ে সব কাজ করো… এমন কথা যে মেয়েরা প্রায়ই বলে, তা তারা নিজেরাও স্বীকার করে। এমন হাজারো কথার সম্মুখীন হতে হয় ছেলেদের। এ ধরনের কথাবার্তা থেকে বাঁচতে ছেলেরা আগেভাগেই মিথ্যা বলে।

ছেলেরা মেয়েদের মনে কষ্ট দিতে ভয় পায়

ছেলেরা এমন কোনো কথা বলতে চায় না, যা শুনে মেয়েরা কষ্ট পাবে। ছেলেদের মিথ্যা বলার এটা অনেক বড় একটা কারণ। ছোট ছোট ভুল ছেলেরা এড়িয়ে যেতে চায়, যাতে তার সঙ্গী না জানে। সমস্যা সেখানেই, কিছু লুকাতে গেলে মিথ্যা তো বলতেই হয়।

নিরাপত্তাহীনতার কারণে

কোনো একটা খারাপ ঘটনা ঘটে গেলে ছেলেরা মেয়েদের বলতে চায় না। তাদের ধারণা, সঙ্গী জানতে পারলে তাকে ছেড়ে চলে যাবে। এই নিরাপত্তাহীনতায় ভোগার কারণে ছেলেরা হরহামেশাই মিথ্যা বলে।

নিজেদের অহম ধরে রাখতে

অনেক সময় নিজেদের অহম ধরে রাখার জন্য ছেলেরা মেয়েদের মিথ্যা বলে। তাদের ধারণা, মেয়েরা কথাগুলো জানতে পারলে অযথা খবরদারি করবে। এ কারণে সে তার সঙ্গীর কাছে সত্য লুকায়।

সম্পর্কে বিশ্বাসের ঘাটতি থাকলে

সব সম্পর্ক এক রকম হয় না। কিছু কিছু সম্পর্কে শুরু থেকেই বিশ্বাসের ঘাটতি থাকে। এ কারণে তারা একজন আরেকজনের অনুভূতিকে খুব একটা পাত্তা দেয় না। এ ধরনের সম্পর্কে ছেলেরা হরহামেশাই মিথ্যা বলে।