empty wallঘর সাজাতে আমাদের ফার্নিচারের অভাব নেই। কিন্তু ঘর ভর্তি করে যদি ফার্নিচার রাখি তবে ঘরের সৌন্দর্য কখনোই বাড়ানো সম্ভব হবে না। কারন শুধু মাত্র ফার্নিচারই ঘরের সাজ বৃদ্ধি করে না। ফার্নিচার দিয়ে ঘর সাজানর পর আমাদের ঘরের কোন না কোন দেয়াল তো ফাকা থেকেই যায়। যা দেখতে অনেক সময় অসম্পূর্ণ লাগে। তাই ঘরের সেই ফাকা দেয়ালটি সাজাতেও আমাদের নতুন ভাবে চিন্তা করতে হয়। ঘরের ফাকা দেয়াল সাজাতে আমরা পাঁচ ধরনের জিনিস ব্যবহার করতে পাড়ি।

গাছঃ ঘরের কোন দেয়াল ফাকা মনে হলে, তাতে সাজিয়ে দেয়া যায় ঝুলন্ত তরতাজা গাছ। বিশেষ কিছু টব আছে যা শুধু মাত্র দেয়ালে ঝুলানোর জন্যই তৈরি করা হয়েছে। সেধরনের টবগুলো নির্বাচন করে, আমরা দেয়াল সাজাতে পারি। আর অনায়েসেই সেই তবে ঝুলিয়ে দিতে পারি ইনডোর প্ল্যান্ট। গাছ সাজানর জন্য ঝুলন্ত টব ছাড়াও হ্যাঙ্গিং স্ট্যান্ড লাগিয়ে তাতে সাধারন টব দিয়ে ঘর সাজাতে পারা যায়। এতে করে দেয়ালে সবুজের ভাব এসে, ঘরে সজিবতা আর প্রানবন্ততার সৃষ্টি করবে।

পেইন্টিংঃ ঘরের দেয়ালের সৌন্দর্য মুহূর্তের মাঝে বাড়িয়ে দিতে বাজারে এখন নানানধরনের পেইন্টিং পাওয়া যায়। পেইন্টিং নির্বাচনের ক্ষেত্রে অবশ্যই দেয়ালের রঙয়ের কথা মাথায় রাখতে হবে। একটি দেয়ালে পেইন্টিং টাঙাতে হলে দেয়ালের বিপরীত রঙের ফ্রেমে পেইন্টিং বাধিয়ে নিন। এতে ঘরের সৌন্দর্য দ্বিগুণ বেড়ে যাবে।

ওয়াল পেপারঃ আজকাল ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে অয়াল পেপারের তুলনা নেই। অনেকেই এখন তাদের পুরো ঘর জুড়ে অয়াল পেপার ব্যবহার করে থাকে। কিন্তু একটু নতুনত্ব আনতে আপনি শুধুমাত্র ঘরের ফাকা দেয়ালটিতে অয়াল পেপার ব্যবহার করতে পারেন। এতে ঘরে একটা নতুনত্বের ভাব আসবে। তবে অবশ্যই এক্ষেত্রে ঘরের দেয়ালের রঙের দিকে নজর দিতে হবে।

ফোটো কোলাজঃ ঘরকে একটু ভিন্নরূপে সাজাতে ব্যবহার করতে পারেন আপনার প্রিয়জনদের ফোটো কোলাজ। প্রিয় মানুষ, বন্ধু বান্ধব, পরিবারের অনেকগুলো ছবিকে ছোট ছোট করে একত্রে প্রিন্ট করে ফোটো কোলাজ তৈরি করে নিতে পারেন। চাইলে বিশেষ ছবি সাজিয়ে নিজের নামও লিখে নতুন কিছু করে নিতে পারেন।