girls-positiveমানুষ হরদম বিপর্যস্ত ও হতাশ হয়। এই পরিস্থিতির আর উন্নতি সম্ভব নয় বলেই মনে করে কিছু মানুষ। বেশিরভাগ মানুষই তার কাঙ্ক্ষিত জীবন উপভোগ করতে পারেনা যার স্বপ্ন সে দেখে। কিন্তু এটি আসলে ঠিক নয়। দৈনিক ছোটখাট সমস্যা, গুরুত্বপূর্ণ জিনিস, অন্য মানুষের জন্য বা বাহিরের কোন বিষয়ের  কারণে বিষণ্ণ থাকা এবং দুঃখের কারাগারে বন্দী হয়ে থাকা উচিৎ নয়।

ইতিবাচকতাই এই বিষয়গুলো থেকে আপনাকে মুক্তি দিতে পারে। ইতিবাচকতার অভ্যাস যদি আপনার মধ্যে গড়ে উঠে তাহলে আপনি নিজের অবস্থানে সন্তুষ্ট থাকতে পারবেন। আপনি অনেক বেশি হাসতে পারবেন এবং আপনার জীবনের ভালো জিনিসগুলোর প্রতি মনযোগী হতে পারবেন। এমন কিছু বিষয় আছে যা সব সময় স্মরণে রাখা প্রয়োজন। এই বিষয়গুলো আপনাকে জীবনের সৌন্দর্যের বিষয়ে মনে করিয়ে দেবে। আসুন তাহলে জেনে নেই এমনই কিছু ইতিবাচক বিষয় সম্পর্কে।

১। আপনার জীবন এবং আপনার যা কিছু পছন্দ নয় তা পরিবর্তিত হতে পারে।

২। সুখি হওয়া বর্তমানের মধ্যে নিহিত থাকে।

৩। আপনার সুখে থাকার যোগ্যতা আছে।

৪। আপনার কর্ম মানুষকে উদ্বুদ্ধ করে। অন্যের জীবনকে পরিবর্তন করতে পারার ক্ষমতা নিয়েই আপনি জন্মগ্রহণ করেছেন। তাই একে অপচয় করবেন না।

৫। আপনি কষ্টের সম্মুখীন হলেই শক্তিশালী হয়ে উঠতে পারেন।

৬। আপনার ভুলগুলোই আপনার অভিজ্ঞতা। এখন আপনি জানেন আপনি পরবর্তীতে কি করবেন। এর ফলেই অন্যদের চেয়ে আপনি কয়েকধাপ এগিয়ে যাবেন।

৭। যেকোন মুহূর্তেই আপনি এমন কারো সাথে পরিচিত হতে পারেন যে আপনার জীবনটাকে পাল্টে দিতে পারেন।

৮। আপনি কেমন অনুভব করছেন বা কি পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন এটা কোন ব্যাপার নয়, সব সময় দুটি কথা মনে রাখবেন-

পরিস্থিতি এর চেয়েও খারাপ হতে পারতো

এটা অস্থায়ী

৯। সাফল্য বয়স, জাতীয়তা, লিঙ্গ, সৌন্দর্য, সংযোগ, রাজধানী, শিক্ষা বা ধর্মের উপর নির্ভর করেনা। এগুলো বাহিরের বিষয়। যদি আপনার কোন উদ্দেশ্য থাকে তাহলে তার প্রতি দৃঢ়ভাবে মনোযোগ কেন্দ্রীভূত করুন এবং আপনার নিজের উপর ও স্বপ্নের উপর বিশ্বাস রাখুন। তাহলেই আপনি নিজের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে পারবেন।

১০। আজকের দিনটি খারাপ হতে পারে। তাই বলে জীবন দুর্বিষহ নয়। আগামী দিনের জন্য অপেক্ষা করুন।

১১। বৃষ্টির পরেই রঙধনুর আবির্ভাব হয়। প্রতিটা সূর্যাস্তের পরই সূর্যোদয় হয়।

১২। কিছু মানুষ আপনার দিকেই তাকিয়ে থাকে যা আপনি নিজেও জানেননা।

১৩। কোন ভালো কাজই নষ্ট হয়না। মানুষকে সাহায্য করুন, দান করুন ও সহানুভূতি দেখান।

১৪। আপনার প্রচেষ্টাই আপনার প্রেরণা হবে। তাই থেমে থাকবেন না।

১৫। যখন আপনি নিজের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করতে পারবেন তখন আপনি নিজেকে ভালবাসবেন, নিজের মনের কথা শুনতে পাবেন, নিজেকে গ্রহণ করতে পারবেন ও নিজেকে উপলব্ধি করতে পারবেন। এমনকি অন্যদের সাথেও আপনার ভালো সম্পর্ক গড়ে উঠবে।

১৬। যদি কোন কিছু ঠিক ভাবে করতে না পারেন তাহলে আগামী দিন আবারো চেষ্টা করার সুযোগ আছে।

১৭। সঠিক খাদ্যগ্রহণ + প্রশিক্ষণ + দৃঢ়তা হচ্ছে একমাত্র সূত্র যা সত্যিই কার্যকরী।

১৮। অতীতের ঘটে যাওয়া খারাপ ঘটনার কোন স্থানই আপনার বর্তমানে থাকতে পারেনা। যা ঘটে গেছে তার থেকে শিক্ষা নিন এবং নতুন চমৎকার কিছু স্মৃতির জন্য জায়গা তৈরি করুন।

১৯। আপনার জীবনে যা কিছু আছে তার উপর মনোযোগ দিন। আপনি দেখবেন যে, আপনি কতটা সমৃদ্ধ। আপনার যা কিছুই আছে তার কদর করুন।

২০। সব ধরণের অসুখ বিসুখই স্ট্রেস ও অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের ফলে সৃষ্টি হয়। আপনার স্বভাব পরিবর্তন করুন তাহলেই আপনি সুস্থ থাকতে পারবেন।

২১। আপনি অনন্য। অন্য কেউ আপনার মত নয়।

২২। জীবনে সুযোগ আসে কয়েকবার। আপনার উচিৎ সেটা গ্রহণ করা ও চেষ্টা করা।

২৩। আপনার শখকেই আপনার ক্যারিয়ারে পরিণত করতে পারেন এবং এর মাধ্যমেই উপার্জনের পথ খুঁজে বাহির করুন। এতে করে আপনি যা করতে বেশি ভালোবাসেন তার প্রতি নিজেকে নিবেদিত করতে পারবেন।

২৪। আপনি যে কাজ করতে পছন্দ করেন না তা করার কোন প্রয়োজন নাই। আপনি নিজেই আপনার বস, তাই আজই সেই কাজটি বা চাকরিটি বাদ দিন এবং আরো ভালো কিছু খুঁজে নিন।

২৫। আপনার জীবনযাপন অন্য কারো মানদণ্ডের উপর নির্ভর করেনা। আপনার নিজের নিয়ম অনুযায়ী চলুন এবং নিজের মনের চাওয়া অনুযায়ী কাজ করুন।

২৬। পৃথিবীতে সবচাইতে নিশ্চিত বিষয় এটাই যে ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত। কিন্তু আপনাকে ইতিবাচক থাকতে হবে এবং এই ব্যাপারে নিশ্চিত থাকুন যে, যা হবে তা ভালোর জন্যই হবে। এর পাশাপাশি বর্তমানকে উপভোগ করুন।

২৭। সম্পর্ককে সুরক্ষিত রাখার জন্য সৎ থাকুন, ভুল স্বীকার করুন এবং ক্ষমা করতে শিখুন।

উপরুক্ত বিষয়গুলো খুবই সাধারণ এবং সুস্পষ্ট যা আমরা সবাই জানি। কিন্তু আমরা প্রায়ই ভুলে যাই নানা ধরণের ক্ষোভের কারণে। তাই নিজেকে বার বার মনে করিয়ে দিন এই বিষয়গুলো এবং নিজের জীবনে এদের প্রয়োগ করুন। তাহলেই একজন ইতিবাচক ব্যক্তির চোখ দিয়ে জীবনকে দেখতে ও উপলব্ধি করতে পারবেন।