আগের দিন রামপুরায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ ও পাঁচ ঘণ্টা সড়ক অবরোধের পর ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা থেকে ফের মেরুল বাড্ডার আফতাফনগরের সামনে প্রগতি সরণীর দুই পাশ আটকে দেয়।

এদিকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও বেলা ১১টার দিকে মিছিল নিয়ে ক্যাম্পাস থেকে বেরিয়েছে। মিছিল শেষে প্রগতি স্মরণীর বসুন্ধরা মোড়েও অবস্থান নেয় তারা।

এরপর স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ধানমন্ডি ২৭ নম্বর সড়ক এবং ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা গুলশান ১ নম্বর সার্কেল থেকে মহাখালীগামী রাস্তা আটকে দেয়।

এছাড়া রাজধানীর হাউজ বিল্ডিং এলাকায় সড়কের বিমানবন্দরমুখী অংশ অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে শুরু করে শিক্ষার্থীরা।

গুরুত্বপূর্ণ এই চার সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আশেপাশের সড়কগুলোতে শুর হয় তীব্র যানজট, ‍ভুগতে হয় নগরবাসীকে।

ইস্ট ওয়েস্টের বিবিএ নবম সেমিস্টারের শিক্ষার্থী আমিনুল ইসলাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমরা ভ্যাট কেন দিতে যাব? আমরা দাবি নিয়ে এসেছি। দাবি আদায়ে মাঠে থাকতে চাই।”

ধানমন্ডি থানার ওসি নূরে আজম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের রাস্তার একাংশ বন্ধ করে বিক্ষোভ করছে। আমরা শান্তিুপূর্ণভাবে তাদের কর্মসূচি পালনের অনুরোধ করছি, বলেছি তারা যেন রাস্তা ছেড়ে দেয়। জনদুর্ভোগের কারণ যেন না হয়।”

বনানী থানার ওসি মো. সালাউদ্দিন বলেন, “ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ভ্যাট প্রত্যাহারে দাবিতে কর্মসূচি পালন করছেন। পুলিশ সেখানে অবস্থান নিয়ে আছে। যান চলাচলের জন্য ডাইভারশনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।”

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের কামরুল ইসলাম বলেন, “ইস্ট ওয়েস্টের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশের হামলার প্রতিবাদ এবং ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে আমাদের এই অবস্থান।”

বিবিএর শিক্ষার্থী আরমান ও সাদমান জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কিছু বিভাগে ‘মিড টার্ম’ পরীক্ষা ছিল। শিক্ষার্থীরা ক্লাস-পরীক্ষা রেখে আন্দোলনে যোগ দিয়েছেন।

শিক্ষার্থীদের কর্মসূচির কারণে সব পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে বলে জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. সহুল আফজাল।

সাদমান বলেন, “আজ সন্ধ্যা পর্যন্ত এই অবস্থান কর্মসূচি চলবে। রোববারও আবার ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন চলবে।”

সরকার চলতি অর্থবছরের বাজেটে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল এবং ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি’র ওপর সাড়ে ৭ শতাংশ হারে ভ্যাট আরোপ করে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড গত ৪ জুলাই এ বিষয়ে আদেশ জারি করে।

এরপর থেকেই এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ-সমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছেন। বুধবার ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে বিক্ষোভের সময় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়।

ওই সময় আন্দোলনরতদের উপর পুলিশের গুলি ও লাঠিপেটার অভিযোগে বুধবার বিকেল ৪টা থেকে পাঁচ ঘণ্টা রামপুরায় প্রগতি সরণী অবরোধ করে রাখেন শিক্ষার্থীরা।

এরপর ‘নো ভ্যাট অন এডুকেশন’ ব্যানারে একটি সংগঠন বৃহস্পতিবার ঢাকার চার পয়েন্টে বিক্ষোভের ডাক দেয়। এছাড়া নারায়ণগঞ্জ, শরীয়তপুর, চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও সিলেটেও বিক্ষোভ করার ঘোষণা দেয় সংগঠনটি।

নো ভ্যাট অন এডুকেশনের মুখপাত্র ফারুক আহমাদ আরিফ বলেন, “সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত ছাত্রসমাজ ঘরে ফিরে যাবে না। আমরা সরকারের কাছে আবারও আহ্বান জানাচ্ছি, শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংসকারী ভ্যাট তুলে নিয়ে আমাদের ক্লাসে ফিরে যাওয়ার ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় ছাত্রসমাজ, শিক্ষার্থী-শিক্ষক, অভিভাবক, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ, শিক্ষাবিদ, সাধারণ মানুষসহ দেশের আপামর জনসাধারণকে সঙ্গে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলব।”