Srityনারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বখাটে যুবকরা মাদরাসা ছাত্রী স্মৃতি মনিকে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। তাদের প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় স্মৃতিকে পরিকল্পিতভাবে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার।

স্থানীয় বখাটে যুবকরাই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত বলে ধারণা করছে পুলিশ। আটক তিন যুবককে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদেও পুলিশ এ বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে।

পুলিশের ধারণা, ঘটনার সঙ্গে বেশ কয়েকজন বখাটে যুবক জড়িত রয়েছে। পুলিশ তাদের গ্রেপ্তারে তৎপর রয়েছে।

নিহত স্মৃতি মনির পরিবারের অভিযোগ, এলাকার বখাটে যুবকরা স্মৃতি মনিকে উত্ত্যক্ত করতো। তাদের প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় তাকে পরিকল্পিতভাবে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে।

নিহত স্মৃতি মনির বাবা ফোরকান মৃধা অভিযোগ করেন, যে বখাটে যুবকরা স্মৃতি মনিকে উত্ত্যক্ত করতো তারাই এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

মা তাছলিমা বেগমের অভিযোগ, প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় এলাকার বখাটে যুবকরা পরিকল্পিতভাবে তার মেয়েকে ধর্ষণের পর মুখে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করেছে। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন তিনি।

এলাকাবাসীও ক্ষোভ প্রকাশ করে হত্যাকারীদের উপযুক্ত শাস্তি দাবি জানিয়েছে।

এদিকে, পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকাণ্ডে আটক তিন জন ছাড়াও এলাকার আরও কয়েকজন যুবক জড়িত রয়েছে বলে ধারণা করছেন ফতুল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান।

তিনি জানান, প্রাথমিক তদন্ত ও হত্যাকাণ্ডের আলামত পর্যালোচনা করে মোটামুটি নিশ্চিত যে, ধর্ষণের পর স্মৃতি মনিকে হত্যা করা হয়েছে। তবে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া গেলে পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

তাছাড়া আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য পাওয়া গেছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারে পুলিশ তৎপরতা চালাচ্ছে। শিগগিরই এ ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটন হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, ফতুল্লার মধ্য ধর্মগঞ্জ এলাকার রমিজ উদ্দিন দেওয়ানের বাড়ির ভাড়াটে চাল ব্যবসায়ী ফোরকান মৃধার মেয়ে স্মৃতি মনি ধর্মগঞ্জ ইসলামিয়া আরাবিয়া দাখিল মাদরাসার সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী ছিল। গত শনিবার রাতে কয়েকজন যুবক বাসায় ঢুকে তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে পালিয়ে যায়।

রোববার ভোরে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় নিহতের মা তাছলিমা বেগম রোববার দুপুরে ফতুল্লা থানায় একটি অভিযোগ করেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে পুলিশ ওই এলাকার নাহিদ, হাবিব ও ইব্রাহিম ওরফে মনা নামে তিন যুবককে জিজ্ঞসাবাদের জন্য আটক করেছে।