এসপিবি.এন নিউজ – অনলাইন ডেস্ক: খুলনার পাইকগাছায় গণধর্ষণের অভিযোগে পঞ্চাশোর্ধ এক ধর্ষক সহ সহযোগী আর এক চা বিক্রেতা মহিলাকে আটক করে পুলিশ জেল-হাজতে পাঠিয়েছে। শনিবার সকালে ভিকট্রিমকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর কথা জানা গেছে।

মামলার বিবরণ ও ধর্ষিতার বক্তব্যর উদ্বৃতি দিয়ে পুলিশ জানান, চলতি মাসের ৫ এপ্রিল উপজেলার কপিলমুনির পুলিশ ফাঁড়ির কাছে স্থানীয় চা বিক্রেতা জরিনা বেগম (৫২) এর বাসাবাড়িতে নিয়ে গোলাবাড়ি এলাকার রমজান নেকারীর স্ত্রী শারমিন ইসলাম (২২) কে মাছ ব্যবসায়ী নজরুল মোড়ল সহ কয়েকজন মিলে গণধর্ষণ করেন।

স্থানীয় সুত্র দাবি করছে, প্রথমে এ ঘটনা স্থানীয় ভাবে মীমাংসার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হওয়ার পর এর রেশ ধরে ধর্ষিতার স্বামী রমজান বৃহস্পতিবার দুপুরে হাটের দিনে রমজান তার লোকজন নিয়ে কপিলমুনি বাজারে নজরুল মোড়লকে ব্যাপক মারপিট করলে বিষয়টি আরও জানাজানি হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী জেলা পরিষদ সদস্য নাহার আক্তার সহ অনেকেই জানিয়েছেন মারপিটের এক পর্যায়ে খবর দেওয়া হলে স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়ি রমজান ও নজরুল কে তাদের হেফাজতে নেয়।

সর্বশেষ ভিকট্রিম বাদি হয়ে নজরুল, চা বিক্রেতা জরিনা সহ কয়েক জনের বিরুদ্ধে শুক্রবার থানায় মামলা করে যার নং ৩২। ভিকট্রিমের স্বামী রমজানকে জিজ্ঞাসাবাদের পর পুলিশ ছেড়ে দিয়েছেন। এদিকে থানার ওসি মারুফ আহম্মদ জানিয়েছেন, ধর্ষণ মামলার ধৃত আসামীদের শনিবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।