বেসরকারী উদ্যোগে সিদ্দিকীয়া ছাত্রী নিবাস ১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত। এখানে কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত ছাত্রীদের থাকার ব্যবস্থা রয়েছে।

অবস্থান
আজিমপুর মাতৃসদন থেকে পশ্চিমে ছাপড়া মসজিদের কাছাকাছি শাহ্-সাহেব বাড়ীর ঠিক ৬০ গজ দক্ষিণে আনন্দ ভবনের পশ্চিমে মা-জেনারেল ষ্টোর সংলগ্ন সাদা রং করা ভবনে সিদ্দিকীয়া ছাত্রী নিবাস অবস্থিত।
ঠিকানা
২৯/ বি, আজিমপুর রোড, ছাপড়া মসজিদের পাশে শাহ্-সাহেব বাড়ীর মোড়ে, ঢাকা- ১২০৫
মোবাইল- ০১৭১১-০৪২৪৬২
ফোন- ০২-৮৬৫০৬৩৯
ভবনের বর্ণনা
  • ৪ তলা বিশিষ্ট ভবন।
  • ৩য় তলা এবং ৪র্থ তলায় বোর্ডার রাখা হয়।
  • এখানে মোট ১০ টি বেডরুম আছে।
  • প্রত্যেক ফ্লোরে ২ টি বারান্দা আছে।
  • প্রত্যেক ফ্লোরে ৩ টি করে টয়লেট আছে।
  • এখানে একটি মাত্র ডাইনিং রুম আছে।
  • এখানে ১০০ বর্গফুট এবং ২০০ বর্গফুট দুই ধরণের রুম রয়েছে।
  • রুমগুলোতে ৪ জন থেকে ৫ জন করে থাকার ব্যবস্থা রয়েছে।
  • রুমগুলোর ফ্লোর সাধারণ এবং হোয়াইট ওয়াশ করা।
বুকিং, ভাড়া এবং অন্যান্য খরচ
  • হোষ্টেলে সিট পাওয়ার জন্য হোষ্টেল সুপারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হয়।
  • যোগাযোগের মোবাইল নম্বর: ০১৭১১-০৪২৪৬২
  • সিট পাওয়ার জন্য ১ মাস পূর্বে যোগাযোগ করতে হয়।
  • খালি থাকা সাপেক্ষে সিট বুকিং দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।
  • সিট পাওয়ার জন্য অগ্রীম বাবদ একমাসের ভাড়া ও খাওয়ার সম্পূর্ণ টাকা এবং ভর্তি ফি বাবদ আরো ১০০০ প্রদান করতে হয়।
  • সিট নেওয়ার সময় অভিভাবকসহ এসে ছাত্রীর দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি ও কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচয়পত্রের ফটোকপি জমা দিতে হয়।
  • সিঙ্গেল বেডের ভাড়া এবং খাওয়ার খরচ সহ ৩,৮০০ টাকা প্রদান করতে হয়।
  • ডাবল বেডের ভাড়া এবং খাওয়ার খরচ সহ ৩,০০০ টাকা প্রদান করতে হয়।
  • প্রতি মাসে জনপ্রতি ২৫০ টাকা হারে বুয়া, পত্রিকা এবং সিকিউরিটির জন্য আলাদা চার্জ নেওয়া হয়।
  • প্রতি মাসের ৭ তারিখের মধ্যে চলতি মাসের ভাড়া নগদে পরিশোধ করতে হয়। কারণে যদি বোর্ডার তার ভাড়াটি না দিতে পারে সেক্ষেত্রে তাকে প্রতিদিন ১০ টাকা হারে জরিমানা প্রদান করতে হয়
খাবার মেনু
  • সকাল- রুটি, সুজি/ডাল/ডিম।
  • দুপুর- ভাত, মাংস (৪ দিন), ভাত, মাছ (ডিম)।
  • রাত- ভাত, সুজি, ডিম।
  • মাসের শেষে ১ দিন পোলাও মাংস খাওয়ানো হয়।
  • এখানে ছাত্রীদের রান্না করতে দেওয়া হয় না।
বিবিধ
  • হোষ্টেলটি সকাল ৮ টা থেকে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত খোলা থাকে। এই সময়ের মধ্যে ছাত্রীদের বাইরের কাজ সেরে হোষ্টেলে ফিরতে হয়।
  • মেহমান রাখার ব্যবস্থা নেই।
  • রুমের খাট, টেবিল, চেয়ার এবং বাল্ব হোষ্টেল কর্তৃপক্ষ সরবরাহ করে থাকে।
  • বোর্ডারদের সাথে গেষ্ট দেখা করতে আসলে কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে বাইরে দেখা করতে হয়।
  • কোন বোর্ডার অসুস্থ হলে হোষ্টেল কর্তৃপক্ষ ডাক্তার দেখানোর ব্যবস্থা করে থাকে। চিকিৎসা খরচ বোর্ডার বহন করতে হয়।
  • সিট বাতিলের জন্য হোষ্টেল কর্তৃপক্ষকে ১ মাস পূর্বে জানাতে হয়।
  • চলে যাওয়ার সময় আলোচনা সাপেক্ষে কিছু সার্ভিস কেটে রাখা হয়।
  • টাকা, গহনা এবং মোবাইল সামগ্রী নিজ দায়িত্বে রাখতে হয়।
  • টিভি, মোবাইল, কম্পিউটার ব্যবহার করা যায়।
  • কম্পিউটার ব্যবহার করলে আলাদা বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে হয়।
  • হোষ্টেলটিতে সার্বক্ষনিক দারোয়ান রয়েছে।
  • অগ্নি নির্বাপণের ব্যবস্থা নেই।
  • খাওয়া-দাওয়ার জন্য আলাদা ডাইনিং রয়েছে।
  • কোন হল রুম নেই।
””’মহিলা হোস্টেল সম্পর্কিত Post গুলো   ”http://www.online-dhaka.com/”   সাইট থেকে মুলত ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের সহায়তার জন্য সংগ্রিহিত এবং প্রকাশিত। আরও আপডেটের জন্য  http://www.online-dhaka.com/  এই সাইটটিতে ভিজিট করুন…”””