জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব ও সমমর্যাদার এই কর্মকর্তাদের উপসচিব হিসেবে পদোন্নতি দিয়ে বুধবার মধ্যরাতে আদেশ জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, উপসচিবের স্থায়ী পদ আছে এক হাজার ছয়টি। এই পদে নতুন করে পদোন্নতি দেওয়ার বর্তমানে উপসচিবের সংখ্যা দাঁড়ালো এক হাজার ৮৫৯ জনে।

এবার প্রশাসন ক্যাডারের ১৮০ জন, শিক্ষার ১৫ জন, কৃষির ১৩ জন, প্রাণিসম্পদ ও টেলিযোগাযোগের পাঁচজন করে, নিরীক্ষা ও হিসাব ক্যাডারের চারজন এবং তথ্য ও গণপূর্ত ক্যাডারের তিনজন করে কর্মকর্তা উপসচিব হিসেবে পদোন্নতি পেয়েছেন।

এছাড়া খাদ্য, আনসার, সড়ক ও জনপথ, ডাক, রেলওয়ে ও বন ক্যাডারের দুইজন করে এবং পুলিশ, সমবায়, মৎস্য, স্বাস্থ্য, পরিসংখ্যান, শুল্ক ও আবগারী ক্যাডারের একজন করে কর্মকর্তাকে উপসচিব করা হয়েছে।

এর বাইরে জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব পদমর্যাদার বিভিন্ন দূতাবাসে কর্মরত সাতজন কর্মকর্তা উপসচিব হয়েছেন।

পদোন্নতি বিধিতে উপসচিব পদে পদোন্নতির জন্য প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের জন্য ৭৫ শতাংশ পদ নির্ধারিত আছে। বাকি ২৫ শতাংশ পদে অন্য ক্যাডারের কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে পদায়ন করা হবে।

এবার যে পদোন্নতির আদেশ হয়েছে, তাতে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা ৭০ দশমিক ৩১ শতাংশ।

এর আগে চলতি বছরের ২৯ অগাস্ট ১৫৪ জনকে অতিরিক্ত সচিব এবং ২০ সেপ্টেম্বর ১৫৪ জনকে যুগ্ম-সচিব হিসেবে পদোন্নতি দেয় সরকার। ২০ ফেব্রুয়া‌রি উপসচিব পদে পদোন্নতি দেওয়া হয় ৪২৪ জনকে।

২০১৭ সালের ২২ ডিসেম্বর ১৯৩ জন উপ-সচিবকে যুগ্ম-সচিব এবং ১১ ডিসেম্বর ১২৮ জন যুগ্ম-সচিবকে অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়। ওই বছর ২৩ এপ্রিল ২৬৭ জন জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিবকে উপসচিব পদে পদোন্নতি দেয় সরকার।

২০১৬ সালের ২৭ নভেম্বর অতিরিক্ত সচিব, যুগ্ম-সচিব ও উপসচিবের তিন স্তরে পদোন্নতি পান ৫৩৬ জন কর্মকর্তা। তার আগে মে মাসে অতিরিক্ত সচিব, যুগ্ম-সচিব ও উপসচিব পদে ২১৭ কর্মকর্তা পদোন্নতি পান।

২০১৫ সালের জুনে উপ-সচিব, যুগ্ম-সচিব এবং অতিরিক্ত সচিব পদে আরও ৮৭৩ কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেয় সরকার।

২০০৯-২০১৩ মেয়াদে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার বিভিন্ন ধাপে জনপ্রশাসনের ২ হাজার ৫২৮ জন কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দিয়েছিল।

গত সরকারের আমলে পদোন্নতি পাওয়া দুই হাজার ৫২৮ কর্মকর্তার মধ্যে সচিব পদে ৭৮ জন, অতিরিক্ত সচিব পদে ২৯৩ জন, যুগ্ম-সচিব পদে এক হাজার ৯১ জন এবং উপ-সচিব হিসাবে ১ হাজার ৬৬ জন পদোন্নতি পান।